আমি কোন খারাপ কাজকে ভয় করব না

বাংলাদেশের নাগরিকদের জন্য কিছু অভিমত

যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রপতি পদের জন্য আমার প্রার্থিতা বিষয়ে বাংলাদেশের সম্মানিত জনগণের সাথে আলোচনা করার সুযোগ পেয়ে, আমি আজকে নিজেকে অনেক ধন্য মনে করছি। এটি ইতিহাসের একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্ত। বিশ্বের সকল জাতিকে এবং নিজস্ব বৈচিত্রতাকে সম্মান দিতে জানে, এমন একটি সরকার পূনর্গঠনের আমাদের এই প্রচেষ্টায় জাতি হিসেবে বাংলাদেশের কাছ থেকে আমাদের অনেক কিছু শেখার আছে। দেশের নাগরিকদের প্রশাসনে অংশগ্রহণ উৎসাহ করার জন্য আপনাদের উদ্যোগ দেখে আমি গভীরভাবে মুগ্ধ । দারিদ্র্য বিমোচনে এনজিওদের নীতিগত অবদান আমাকে যুক্তরাষ্ট্রের জন্য একটি উন্নত প্রশাসনিক মডেল তৈরী করতে অনুপ্রেরিত করেছে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তার গণতান্ত্রিক আদর্শ তুলে ধরবে, এবং এটি বাংলাদেশের জন্য আমাদের নতুন মনোভাবে প্রতিফলিত হবে। বাংলাদেশকে দীর্ঘদিন ধরে উপেক্ষা করা হয়েছে এবং ভুলভাবে অনুধাবন করা হয়েছে।

ববিশ্বের অষ্টম সর্বাধিক জনবহুল দেশ হিসেবে গণতান্ত্রিকভাবে বাংলাদেশকে যথাযথ নজর দেওয়া উচিত বলে আমি মনে করি। বাংলাদেশের জনসংখ্যার ঘনত্ব এই দেশের সম্মানিত নাগরিকদের জন্য প্রচুর প্রতিকূলতা সৃষ্টি করে, তবে এই পরিস্থিতিতে জীবন নির্বাহে যে উদ্ভাবন করে আসছে বাংলাদেশীরা তা ভবিষ্যৎ বিশ্বের জন্য একটি মডেল হওয়া উচিত, যেখানে সমাজ, ভোগ এবং বর্জ্য উৎপাদন সংস্কৃতির উর্দ্ধে উঠার প্রচেষ্টা করবে।

বাংলাদেশ কৃষিক্ষেত্রে অঙ্গীকারবদ্ধ। এটা অতীত নয়; এটাই মানবতার ভবিষ্যত। আমার প্রশাসনের অধীনে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র কৃষিকে তার প্রাথমিক শিল্প হিসাবে গড়ে তুলবে এবং মানুষের জন্য টেকসই কৃষিক্ষেত্র তৈরিতে আমাদের সমস্ত জ্ঞান এবং সৃজনশীলতা উৎসর্গ করবে। টেকসই কৃষির উন্নয়নে বাংলাদেশের সাথে নিবিড়ভাবে কাজ করা নিয়ে আমরা আশাবাদী, যেখানে কৃষিক্ষেত্রে আমাদের নাগরিকরা অন্তর্ভুক্ত হবে, এবং বহুজাতিক কর্পোরেশনগুলো বহির্ভুত।

ঘন মানব জনগোষ্ঠীর মাঝে জীববৈচিত্র্য বজায় রাখার প্রচেষ্টায় আমি মুগ্ধ। নিম্ন গ্যাঙ্গিক সমভূমি, আর্দ্র পর্ণমোচী বন, মিজোরাম – মণিপুর – কাচিন রেইন ফরেস্ট এবং সুন্দরবন মিঠা পানির জলাভূমির বন, এগুলো সবই অত্যন্ত মূল্যবান। আপনাদের জনগণ তাদের জীবনযাপনে এবং তাদের পারিবারিক গণ্ডিতে এমন আধ্যাত্মিক গভীরতা পেয়েছে যা তাদের সমাজের মানুষের বিকাশকে মূল্য দেয়।

আপনাদের যে জ্ঞান এবং সংস্কৃতি রয়েছে সেটা আমি যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে পরিচয় করিয়ে দিতে চাই।

জলবায়ু পরিবর্তন, সমুদ্রের স্তর বৃদ্ধি আপনাকে সরাসরি প্রভাবিত করে এবং এটি আমেরিকান সুরক্ষা নীতির কেন্দ্রবিন্দু হবে। আমি স্পষ্টভাবে ১৯৯৮ সালের বিশাল বন্যার দুর্ভোগের কথা স্মরণ করি এবং জলবায়ু পরিবর্তন কীভাবে আপনার নাগরিককে প্রভাবিত করে তা সম্পর্কে আমি গভীরভাবে অবগত। জলবায়ু পরিবর্তনের চ্যালেঞ্জের প্রতিক্রিয়া হিসাবে, বৃদ্ধি এবং ব্যয়বিহীন টেকসই জীবনযাপনের জন্য আমাদের প্রচেষ্টায়, বাংলাদেশকে অংশীদার করব। আমরা আশা করি আপনারা আপনাদের সর্বোত্তম জ্ঞানে আমাদেরকে অংশীদার করবেন। যুক্তরাষ্ট্রের জন্য অস্ত্র ব্যবস্থার বিক্রি তুলনায় জলবায়ু পরিবর্তনের থেকে বেঁচে থাকা অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ।

যুক্তরাষ্ট্র ভবিষ্যতে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া, বিশেষত বাংলাদেশকে অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে গ্রহণ করবে এবং শীর্ষ স্তর ও সাধারণ নাগরিকদের মধ্যে সম্পর্ক স্থাপন করবে। আমরা চাই আমাদের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা আপনাদের শিক্ষার্থীদের সাথে একসাথে পড়াশোনা করুক। আমরা চাই আমাদের স্থানীয় সরকারগুলি আপনাদেরগুলোর সাথে ঘনিষ্ঠতা বিনিময় করুক। আমরা অবশ্যই কূটনীতি এবং সুরক্ষায় একসাথে কাজ করব, তবে সংলাপে বিনিয়োগ ব্যাংক এবং অস্ত্র নির্মাতাদের এই আধিপত্যের অবসান আমরা করব। এখন থেকে, আলোচনাটি আমাদের নাগরিকদের মধ্যে থাকবে।

আমি নিশ্চিত যে বাংলাদেশের সম্মানিত নাগরিকরা বাস্তব আন্তর্জাতিকতাবাদের প্রতি আমার সমর্থন এবং বিশ্ববাদ ও নব্য-ঔপনিবেশিকতাবাদের প্রতি আমার নিন্দার তাৎপর্য বুঝতে পারবে। টেক্সটাইল এবং জাহাজ নির্মানের জন্য বিখ্যাত, বাংলাদেশ ছিল বিশ্বের সবচেয়ে ধনী এবং সবচেয়ে টেকসই অর্থনীতি। আপনাদের দেশটি বিশ্ববাদীদের প্রথম প্রজন্ম, ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া সংস্থার দ্বারা বিধ্বস্ত হয়েছিল, যা আপনাদের জাতিকে লুন্ঠিত করেছিল এবং নাগরিকদের অনাহারে থাকতে বাধ্য করেছিল। আমরা সবাই জানি যে এই ধরণের ভয়াবহতা আজও অব্যাহত রয়েছে। আমি আপনাদের প্রতি আমার হাত প্রসারিত করছি, জনগণের জন্য সত্যিকারের টেকসই অর্থনীতি তৈরিতে আমাদের সাথে যোগ দিন এবং আমাদের জনগণের জীবনকে কেন্দ্র করে বিশ্বব্যাপী মূলধনের শাসন শেষ করি।

আমি ফেব্রুয়ারী ২০২০-এ রাষ্ট্রপতি পদে আমার প্রার্থী হওয়ার উদ্দেশ্য ঘোষণা করেছিলাম। আমি বক্তৃতা  দিয়েছি, সহ আমেরিকানদের সাথে দেখা করেছি, বিশেষত যারা আমাদের দেশে গভীর নৈতিক পচনের পরিণতি ভোগ করছেন। তাদের সাহায্য-সহায়তায়, আমি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জন্য একটি ইতিবাচক দিকনির্দেশনা তৈরি করতে শুরু করেছি, এমন একটি ভবিষ্যৎ যেখানে আমরা ব্যবহার, নিষ্কাশন এবং অন্তহীন যুদ্ধের বিপজ্জনক সংস্কৃতি থেকে দূরে সরে আসতে পারি যা একটি জাতিকে ভয়াবহ ভাইরাসের মতো সংক্রামিত করেছে এবং বিপজ্জনক পরজীবী দ্বারা প্রশস্ত করা হয়েছে।

এককালে আমি ইয়েলে এবং হার্ভার্ডের কিছু গ্র্যাজুয়েটদের সাথে যুক্ত হয়েছিলাম, যখন আমার ক্যারিয়ার শুরু করি, তারা আমার সহকর্মী ছিলেন। এমনকি তারা জিজ্ঞাসা করতেও রাজি ছিলেন যে এই অন্যান্য “প্রার্থী” রাষ্ট্রপতি হওয়ার যোগ্য কিনা, বা এই নির্বাচনটি, বা শেষটি, ভোটের ব্যাপক হেরফের মঞ্জুর করেছে এবং বিষয়গুলি সম্পর্কে বিভ্রান্তিমূলক প্রতিবেদন দেওয়া, আদৌ একটি নির্বাচন বলার যোগ্য কিনা। তারা আমার প্রচেষ্টাগুলোকে বাতিল করে দিলো।

তবে শ্রমজীবী ​​মানুষরা, যাদের সাথে আমি দেখা করি, যাদের সাথে আমি কাজ করি তারা বুঝতে পারে আমি কী বলছি। তারা জানে যে আমি জানুয়ারী থেকে চাকরিবিহীন ছিলাম, আমাকে বাসা থেকে জোর করে বের করে দাওয়া হয়েছিল, এবং আমাদের পরিবারকে একত্রে রাখার চেষ্টা করার ফলে যে ট্রমা হয়েছিল তাতে আমার স্ত্রী মারাত্মক অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন। আমি জানি তারা কী সম্পর্কে কথা বলছে কারণ কারণ আমার এটার অভিজ্ঞতা আছে ।

আমাদের যদি কোনও নির্বাচন হয় যেখানে আমার মতো কেউ প্রার্থী হতে পারেনা, সংবাদমাধ্যম সম্প্রচার হওয়ার সুযোগ পেতে পারেনা, তাহলে আমরা নির্বাচন করছি না, বরং একটি চিত্তাকর্ষক মিথ্যা প্রচার করছি।

——————————————–

 

ইমানুয়েল প্যাস্ত্রিচ গত দুই দশক ধরে কূটনীতি এবং সুরক্ষার ক্ষেত্রে যুক্তিবাদী আমেরিকান নীতিতে শীর্ষস্থানীয় ভয়েস হিসাবে আবির্ভূত হয়েছেন, জলবায়ু এবং জীববৈচিত্র্য ধস, মানব সমাজে নতুন প্রযুক্তির বিপর্যয়মূলক প্রভাব, সম্পদের ঘন ঘন ঘনত্ব, এবং বৈশ্বিক অস্ত্রের প্রতিযোগিতার উপর লেসার ফোকাস করে।

প্যাস্ত্রিচ তাঁর লেখায় এবং তাঁর বক্তৃতায় ফ্র্যাঙ্কলিন ডি রুজভেল্ট এবং অ্যাডলাই স্টিভেনসনের অনুসরণকারী আন্তর্জাতিকতার ঐতিহ্যকে নতুন করে আনার চেষ্টা করছেন। তিনি দাবি করেছেন যে গত কয়েক বছর ধরে কর্পোরেশনগুলিকে দেওয়া ট্রিলিয়ন কোটি টাকা ফেরত নেওয়া উচিত; অ্যামাজন এবং ফেসবুকের মতো সংস্থাগুলি নিয়ন্ত্রিত সমবায় হিসাবে পরিচালিত হওয়া উচিত; জীবাশ্ম জ্বালানী কর্পোরেশনের সম্পদগুলি তাত্ক্ষণিকভাবে দখল করা উচিত এবং তাদের মালিক এবং প্রশাসকদের জলবায়ু পরিবর্তন সম্পর্কে সরকার এবং জনগণের কাছে প্রতারণামূলক তথ্য উপস্থাপনের ফৌজদারি পদক্ষেপের জন্য অভিযুক্ত করা উচিত।

কোরিয়ান, জাপানি এবং চীনা ভাষায় সাবলীল একজন এশিয়া বিশেষজ্ঞ প্যাস্ত্রিচ ১৯৯৮ সালে ইলিনয় ইউনিভার্সিটি, উর্বানা-শ্যাম্পেইন বিভাগের অধ্যাপক হিসাবে তার কর্মজীবন শুরু করেছিলেন। তিনি বর্তমানে ওয়াশিংটন ডিসি, সিওল, টোকিও এবং হ্যানয়-তে অবস্থিত এশিয়া ইনস্টিটিউটের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। এটি একটি নীতিনির্ধারণী প্রতিষ্ঠান যেটা কূটনীতি, সুরক্ষা এবং প্রযুক্তির উপর জোর দিয়ে কাজ করে।